• LOGIN
  • No products in the cart.

Login

WBCS এর একটি পোস্ট : সরকারি হোমের সুপারিনটেনডেন্ট

লেখক: পার্থ ঘোষাল

সুপারিনটেনডেন্ট, সুমঙ্গল বয়েজ হোম, বিষ্ণুপুর, বাঁকুড়া

ওয়েস্ট বেঙ্গল সিভিল সার্ভিস এর গ্রুপ সি এর অন্তর্গত একটি সার্ভিস হলো ওয়েস্ট বেঙ্গল জুনিয়র সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সার্ভিস। এই সার্ভিসে দুটি পোস্ট আছে, একটি হলো চাইল্ড ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট অফিসার (C.D.P.O.) এবং অন্যটি হলো সরকারি হোম এর সুপারিনটেনডেন্ট। সি ডি পি ও হলো ইন্টিগ্রেটেড চাইল্ড ডেভেলপমেন্ট স্কিম (আই. সি. ডি. এস.) এর অন্তর্গত। অন্যদিকে হোম এর সুপারিন্টেন্ডেন্ট ইন্টিগ্রেটেড চাইল্ড প্রটেকশন স্কিম (আই. সি. পি. এস.) এর অন্তর্গত।

এখন আমরা হোম এর সুপারিন্টেন্ডেন্ট এর পোস্ট টার ব্যাপারে আলোচনা করবো। হোম বিভিন্ন ধরণের হয়, যেমন চিলড্রেন হোম, কটেজ হোম, শর্ট-স্টে হোম, ওল্ড এইজ হোম ইত্যাদি। এই হোম গুলোর বেশির ভাগ ই আবার এন. জি. ও. দ্বারা পরিচালিত। এখন ডাব্লিউ বি সি এস এর অন্তর্গত জুনিয়র সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সার্ভিস এ মূলত সরকার পরিচালিত চিলড্রেন হোম এর সুপারিনটেনডেন্ট হিসাবে পোস্টিং হয়ে থাকে। এই চিলড্রেন হোম গুলো সব জুভেনাইল জাস্টিস (কেয়ার এন্ড প্রটেকশন) এক্ট সংক্ষেপে জে. জে. এক্ট দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়ে থাকে। একটি বিশেষ এক্ট দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হওয়ার ফলে হোম এর সুপারিনটেনডেন্ট এর পোস্ট টি বাকি সিভিল পোস্ট গুলোর থেকে একটু হলেও আলাদা। সরকার পরিচালিত হওয়ার জন্য সাধারণ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন এর উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ (S.D.O., A.D.M., & D.M.) তো এর দেখভাল করেই থাকে পাশাপাশি ওই জে জে এক্ট এর কারণে জুডিশিয়াল এর লোকজন (ডিস্ট্রিক্ট কোর্ট ও হাই কোর্ট এর জজ) এবং চাইল্ড রাইটস কমিশন এর সদস্য রাও হোম এর তত্ত্বাবধান করে থাকে আর তাই অন্য পাঁচ টা সার্ভিস এর থেকে এই সার্ভিস এ দায়িত্ব বা কর্তব্য তুলনামূলক ভাবে হয়তো একটু বেশি থাকে।

চিলড্রেন হোম গুলো বিভিন্ন রকমের হয়ে থাকে, যেমন C.N.C.P. Home (Children in need of care and protection); এখানে ০৬ থেকে ১৮ বছর বয়স পর্যন্ত শিশু রা থাকতে পারে যাদের যত্ন ও সুরক্ষা কোনো ভাবে বিঘ্নিত হয়েছে। এছাড়া আছে অবজারভেশন হোম, এখানে সেই সমস্ত শিশুরা থাকে যাদের কোনো অপরাধের দায়ে হয়তো বিচার চলছে কিন্তু এখনো দোষী সব্যস্ত হয়নি, আর বিচারের শেষে যদি কোনো শিশু দোষী সব্যস্ত হয় তাদের রাখা হয় যে হোম এ তাকে বলে স্পেশাল হোম।  যে কোনো চিলড্রেন হোম এর অন্যতম প্রধান কাজ হলো যে সমস্ত শিশু এখানে থাকে অর্থাৎ যারা সমাজের কোনো বঞ্চনার শিকার তাদের কে সমাজের মূল স্রোতে ফিরিয়ে দেওয়া। বর্তমানে পশ্চিম বঙ্গে ২২ টি সরকারী হোম ও ২২ টি NGO পরিচালিত হোম আছে।

সিভিল সার্ভিস মানেই দায়িত্ব, সুতরাং এটা নিয়ে আলাদা করে কিছু ভাবার নেই। একটা হোম এর সার্বিক পরিচালনার দায়িত্ব সুপারিনটেনডেন্ট এর। হোম কোনো সময় ই বন্ধ থাকে না, সবসময় ই সেখানে আবাসিকরা থাকে, তাই সুপারিনটেনডেন্ট কেও সর্বদাই সজাগ থাকতে হয় কোনো আপৎকালীন পরিস্থিতি মোকাবিলা করার জন্য। এক্ট অনুসারেই হোম এর সুপারিনটেনডেন্ট হোম ক্যাম্পাস এর মধ্যে তার জন্য নির্দিষ্ট কোয়ার্টার এ থাকতে বাধ্য, যাতে যে কোনো সময় দরকার হলেই তাকে পাওয়া যায়। সর্বোপরি এটা বলা যায় যে কাজের দায়িত্ব অনেক বেশি থাকলেও এক বঞ্চিত শিশুর মুখে এক চিলতে হাসি দেখার যে অনাবিল আনন্দ তার প্রাপ্তি বোধ হয় এই চাকরির থেকে ভালো ভাবে কোথাও পাওয়া সম্ভব নয়।

July 13, 2018

1 responses on "WBCS এর একটি পোস্ট : সরকারি হোমের সুপারিনটেনডেন্ট"

  1. খুব স্বল্প কথায় এই পদের দায়িত্বের ভালো বর্ননা দিয়েছেন

Leave a Message

Who’s Online

There are no users currently online

X